Wellcome to National Portal

Text size A A A
Color C C C C
সর্ব-শেষ হাল-নাগাদ: ৮ এপ্রিল ২০১৭

পারমাণবিক নিরাপত্তা বিধানে সর্বাধুনিক প্রযুক্তির ব্যবহার

পারমাণবিক নিরাপত্তা বিধানে সর্বাধুনিক প্রযুক্তির ব্যবহার

 

বাংলাদেশে ক্রমবর্ধমান বিদ্যুৎ চাহিদা মোকাবেলায় এবং দেশের সামষ্টিক অর্থনীতির উত্তরোত্তর অগ্রগতি সাধনে পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণের উপযুক্ততা সম্পর্কে সরকার সম্পূর্ণরূপে সচেতন। পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের রিঅ্যাক্টরের প্রযুক্তি বাছাইয়ের ক্ষেত্রেও সরকার এবং সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশ পরমাণু শক্তি কমিশন পারমাণবিক নিরাপত্তার বিষয়টি সর্বাধিক গুরুত্ব দিয়েছে। বর্তমান সরকার রাশিয়ান ফেডারেশনের সাথে রূপপুরে পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র স্থাপনের যে চুক্তি করেছে তাতে ভিভিইআর টাইপ রিঅ্যাক্টর পরিবারের সর্বশেষ সংস্করণ স্থাপণের সিদ্ধান্ত রয়েছে। প্রযুক্তি বাছাই এবং বিদ্যুৎ উৎপাদন ক্ষমতা নির্ধারণের পর পারমাণবিক নিরাপত্তার বৈশিষ্ট্যসমূহও কাস্টমাইজ করার স্বাধীনতা বাংলাদেশের রয়েছে। অর্থাৎ বাংলাদেশ সরকার রূপপুরে ভিভিইআর পরিবারের সর্বাধুনিক প্রযুক্তি নির্মাণের উদ্যোগ গ্রহণ করেছে। উক্ত প্রযুক্তিতে রাশিয়ান ফেডারেশন কর্তৃক উদ্ভাবিত সর্বাধুনিক যেকোন পারমাণবিক নিরাপত্তামূলক বৈশিষ্ট্য অন্তর্ভূক্ত থাকবে।

রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্পটি দেশীয় ও আন্তর্জাতিক সকল বাধ্যবাধকতা বিবেচনায় নিয়ে এবং আন্তর্জাতিক মানদন্ড অনুসরণ করে যথাযথ উপায়ে ধাপে ধাপে প্রয়োজনীয় কার্যাদি সম্পাদনের মাধ্যমে এগিয়ে নেয়া হচ্ছে। এক্ষেত্রে মানব সম্পদ উন্নয়ন থেকে শুরু করে রিঅ্যাক্টরের নিরাপত্তা নিশ্চিতকরণ, পরিবেশের ভারসাম্য সংরক্ষণ এবং আনুষঙ্গিক বিষয়াদি সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়েই প্রকল্পের কাজ সম্পন্ন করা হচ্ছে। পারমাণবিক বিদ্যুৎ কর্মসূচি বাস্তবায়নের জন্য একটি দেশের দীর্ঘ মেয়াদী জাতীয় সিদ্ধান্ত থাকা প্রয়োজন। দেশের স্বার্থে রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্প বাস্তবায়নে জড়িত সকল ব্যক্তিবর্গ, জাতীয় পর্যায়ের নীতিনির্ধারণী মহল এবং সর্বস্তরের পেশাজীবীদের মাঝে প্রকল্প বাস্তবায়নের প্রয়োজনীয়তা সন্দেহাতীতভাবে প্রতিষ্ঠিত হলে এবং সততার সাথে প্রকল্প বাস্তবায়নের কাজে উদ্যোগী হলেই যথাসময়ে রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্পটি বাস্তবায়ন নিশ্চিত করা যাবে। রূপপুরে নির্মিতব্য ভিভিইআর টাইপ রিঅ্যাক্টর-এর নিম্নবর্ণিত (ছবি) পাঁচ স্তরের নিরাপত্তা বৈশিষ্ট্য থাকবে।

ফলে রিঅ্যাক্টরটি মনুষ্য-সৃষ্ট কোন দুর্ঘটনা এবং প্রাকৃতিকভাবে ঘটতে পারে  এমন যে কোন প্রকার বিপর্যয় যেমন- শক্তিশালী ঘূর্ণিঝড়, ভুমিকম্প, বন্যা ইত্যাদি মোকাবেলায় সক্ষম থাকবে। নিচের  ছবিতে মনুষ্য ও প্রকৃতি সৃষ্ট বিভিন্ন প্রকার বিপর্যয় বর্ণিত হল। রূপপুরে নির্মিতব্য রিঅ্যাক্টরটি এসব দুর্ঘটনা মোকাবেলা করে বিদ্যুৎ উৎপাদনে সক্ষম থাকবে।


Share with :

Facebook Facebook